পাইকগাছা পৌরসভায় ভূ-গর্ভস্থ পানি দিয়ে তৈরী করা হচ্ছে বরফ

হুমকির মুখে ওয়াটার ট্রিটমেন্ট

খুলনা  প্রতিনিধি : খুলনার পাইকগাছা পৌরসভার পানি ট্রিটমেন্ট প্লান্টের পানিতে লবণাক্ততা বৃদ্ধি পাওয়ায় ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলন করে বরফ তৈরী অব্যাহত রাখায় চাঁদখালীর আইস ফ্যাক্টরীর ট্রেড লাইসেন্সনবায়ন বন্ধ করে দিয়েছে পৌর কর্তৃপক্ষ।

এছাড়া আইচ ফ্যাক্টরীটি স্থানান্তরসহ ভূ-গর্ভস্থতে পানি উত্তোলন বন্ধে আইচ ফ্যাক্টরীর মালিককে পৌরসভার পক্ষ থেকে নোটিশ প্রদান করাহয়েছে। বিষয়টি নিয়ে পৌর ও আইচ ফ্যাক্টরী কর্তৃপক্ষ পরস্পর বিরোধী মন্তব্য করেছেন।

পৌর কর্তৃপক্ষ দাবী করেছে, ট্রিটমেন্ট প্লান্টের পাশেই আইচ ফ্যাক্টরী হওয়ায় এবং ভূ-গর্ভস্থ পানি দিয়ে বরফ তৈরী করায় ট্রিটমেন্ট প্লান্টের পানিতে প্রতিনিয়ত লবণাক্ততা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

অপরদিকে আইচ ফ্যাক্টরীর মালিক আরিফ জানিয়েছেন, চিংড়ি সমৃদ্ধ এলাকায় মৎস্য ও চিংড়ীর গুণগত মান বজায় রাখার জন্য বরফের কোন বিকল্প নাই।

সূত্র মতে, ১৯৯৭ সালের ১ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন সদর ইউনিয়নের আংশিক এলাকা নিয়ে পৌরসভা প্রতিষ্ঠা হয়। পৌরসভা প্রতিষ্ঠা হলেও পৌরবাসীর সুপেয় পানির কোন সু-ব্যবস্থা ছিলনা। ২০১৩ সালে উন্নয়ন সংস্থা নবলোক ও ওয়াটার এইডের সহযোগিতায় পৌরসভার উদ্যোগে বাস্তবায়িত হয় পাইপ লাইন পানি সরবরাহ প্রকল্প।

প্রকল্পের আওতায় পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের সরল দীঘিরপাড়ে স্থাপন করা হয় ট্যাংক ও প্রকল্পের মূল কার্যক্রম। এ প্রকল্পের আওতায় ৫শ সংযোগের মাধ্যমে বর্তমানে পৌরসভার ১ হাজার ৬৮৬টি পরিবার নিরাপদ পানির সুবিধা পেয়ে আসছে।

এছাড়া পৌর অভ্যন্তরে বিভিন্ন অফিস, আদালত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ও হোটেলের যাবতীয় পানির চাহিদা পূরণ করে আসছে।

পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর জানান, যেহেতু পৌর এলাকায় ছোট ছোট পকেট লেয়ারে মিষ্টিপানি সঞ্চিত রয়েছে। তাই পানি উত্তোলনের পাশাপাশি যথাযথ রিচার্জ না হওয়ার কারণে এই লিয়ারে পানির সংকট দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এর মধ্যে পানির প্লান্টের পাশের চাঁদখালী আইচ ফ্যাক্টরী প্রতিদিন হাজার হাজার লিটার ভূ-গর্ভস্থ মিষ্টিপানি উত্তোলন করে বরফ তৈরী করছে।

ফলে পৌরসভার পানি সরবরাহ প্রকল্পটি হুমকির মুখে পড়েছে। প্লান্টের পানিতে প্রতিনিয়ত মাত্রারিক্ত লবণাক্ততা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এমতাবস্থায় প্রতিদিনের পাইপ লাইনের পানি সরবরাহ নিশ্চিত করার লক্ষে বরফ কলের ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলন বন্ধ করা জরুরী।

এ ব্যাপারে পৌরসভার মাসিক সভায় বরফ ফ্যাক্টরীর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। সিদ্ধান্ত মোতাবেক বরফ ফ্যাক্টরীর লাইসেন্স বন্ধ রাখা সহ ফ্যাক্টরীর মালিককে নোটিশ প্রদান করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে আইচ ফ্যাক্টরীর মালিক আরিফ জানান, ফ্যাক্টরীটি পানির প্লান্টের অনেক আগেই তৈরী হয়েছে। এ ছাড়া অত্র এলাকা চিংড়ি উৎপাদনের জন্য বিখ্যাত।

এলাকা থেকে প্রতিদিন শত শত মন চিংড়ি ও মৎস্য উৎপাদন হয়ে থাকে। এর থেকে সরকার কোটি কোটি টাকা রাজস্ব পায় উৎপাদিত হিমায়িত পণ্য ও মৎস্যের গুণগতমান বজায় রাখার জন্য বরফ উৎপাদন অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ।

আরো দেখাও

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close