প্রবাসী নারীকর্মীদের এক শতাংশেরও কম নির্যাতনের শিকার

নিউজ ডেস্ক : ৬ লাখের বেশি নারী কর্মী বিদেশে কর্মরত থাকলেও তাদের মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরত বাংলাদেশি নারীকর্মীদের মধ্যে নির্যাতনের শিকার ১ শতাংশেরও কম বলে দাবি করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। প্রবাসে কর্মরত এসব নারীদের মধ্যে গৃহকর্মীরাই বেশি নির্যাতনের শিকার বলে জানায় মন্ত্রণালয়। তবে সংখ্যায় সংখ্যায় যেটাই হোক নির্যাতন বন্ধে কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে বলেছে সংসদীয় কমিটি।

বুধবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কমিটির সভাপতি মুহম্মদ ফারুক খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন, প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদ, নাইম রাজ্জাক ও নিজাম উদ্দিন জলিল (জন) অংশ নেন।

বৈঠকের বিষয়ে কমিটির সভাপতি ফারুক খান সাংবাদিকদের বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে নারী শ্রমিকদের নির্যাতনের বিষয়ে আলোচনা করেছি। মন্ত্রণালয় জানিয়েছে বর্তমানে ৬ লাখের বেশি নারী কর্মী বিদেশে আছেন। এরমধ্যে নির্যাতনের হার এক শতাংশেরও কম। তবে আমরা বলেছি সংখ্যায় যেটাই হোক নির্যাতন বন্ধে কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে হবে। কোনো নারী নির্যাতনের শিকার হলে পররাষ্ট্র বা প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়কে বাদী হয়ে মামলা করতে হবে। নির্যাতনকারীদের ওপর চাপ অব্যাহত রাখতে হবে।

মন্ত্রণালয়ের উদ্বৃতি দিয়ে সভাপতি জানান, অনেক নারীকর্মী বিদেশে ভালো আছেন। তারা নিজেরা দেশে ফিরে আসার পর আবারও যাচ্ছেন। তাদের আত্মীয় স্বজনদেরও নিয়ে যাচ্ছেন।

বৈঠকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়- তুলনামুলকভাবে পুরুষ কর্মীদের থেকে নারীকর্মীরা বেশি রেমিট্যান্স পাঠায়। পুরুষরা তাদের আয়ের ৬০ শতাংশ রেমিটেন্স পাঠায় সেখানে নারীরা পাঠান ৯০ শতাংশ।

নিয়ম অনুযায়ী ২৫ বছরের কম ও ৪৫ বছরের বেশি বয়সী নারীদের বিদেশ না পাঠানোর কথা রয়েছে। কিন্তু কখনো ১৪ বছরের শিশু আবার কখনো ৬৫ বছর বয়সী বয়স্কদের পাঠানো হয়েছে বলে কমিটিকে অবহিত করা হয়। এ বিষয় কমিটির পক্ষ থেকে অনিয়মের সাথে জড়িত এজেন্সিগুলো চিহ্নিত করে বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে কমিটি বিদেশে প্রশিক্ষণ গ্রহণকারী কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ যথাযথভাবে কাজে লাগানোর পরামর্শ দেয়া হয়।

আরো দেখাও

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close