ভাইদের পায়ে পড়েও বাবাকে বাঁচাতে পারলোনা শিশু মোজাম্মেল

সীমানা বিরোধের জের

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি : চোখের সামনেই আপন দুই চাচাতো ভাই দা দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে চলছিল তার বাবাকে। সেই দৃশ্য সহ্য করতে না পেরে, শেষ চেষ্টা হিসাবে দুই চাচাতো ভাইয়ের পায়ে ধরে বাবাকে বাঁচাতে মিনতিও করে।

কিন্তু প্রিয় বাবা দুলাল মিয়াকে বাঁচাতে পারলো না স্কুল পড়ুয়া ছোট শিশু সন্তান মোজাম্মেল।

ঘটনাটি ঘটেছে, কিশোরগঞ্জ ভৈরবে দুই ভাতিজার হাতে চাচা খুন হয়েছে। এসময় নিহতের ছেলে মিজান(৩৮) ও ছেলের বউ রেহানা বেগম(২৮) আহত হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যা ৭টা ৩০মিনিটে শিবপুর উপজেলার পানাউল্লাচর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তি হলেন ওই এলাকার আব্দুল জব্বর মিয়ার ছেলে দুলাল (৬০) মিয়া। অভিযুক্ত দুই বাতিজা হলেন নিহত ব্যাক্তির বড় ভাই মৃত লাল মিয়া ছেলে আক্তার(৩৫) ও বাছির(২৮)।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রবিবার ৮ জুলাই বাড়ির পাশে জায়গার সীমানা নির্ধারণের জন্য গাছ কাটে নিহত দুলাল ও তার ছেলে মিজান। সোমবার সন্ধ্যায় বাড়ির পাশে গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে চাচার দুলালের সাথে দুই ভাতিজার তর্কবিতর্ক হয়।

এ সময় উভয় পক্ষের তর্কবিতর্কের এক পর্যায়ে দুই ভাতিজা ঘরের বডি দা ও শাবল দিয়ে চাচাকে একাধিক কোপ দিলে তিনি গুরুতর আহত হন।

বাবাকে বাচনোঁর চেষ্টার সময় তার ছেলে মিজান ও ছেলে বউ রেহানা গুরুতর আহত হয়। পরে এলাকাবাসী দুলাল মিয়াকে উদ্ধার করে বাজিতপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে রাস্তায় তিনি মারা যান।

অপর দিকে তার ছেলে ও ছেলের বউকে চিকিৎসার জন্য ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ঘটনার পর দুই ভাতিজা পলাতক রয়েছে।

ভৈরব থানার পুলিশ উপ পরিদর্শক জাহাঙ্গীর জানান, গাছকাটাকে কেন্দ্র করে দুই ভাতিজার হাতে চাচা খুন হয়েছে।

খবর পাওয়ার পর ঘটনাস্থলে এসে প্রাথমিক সুরাতহাল রিপোর্ট তৈরী করে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ সদর হসপিটালে পাঠানো হয়েছে। এখনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো দেখাও

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close